শুক্রবার  ২২শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং  |   শুক্রবার  ৭ই আশ্বিন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

এইমাএ পাওয়া

সৈয়দপুর নির্মিত হচ্ছে যাত্রীবাহী রেলকোচ

আগস্ট ১২, ২০১৬

রেলকোচ

শরিফুল ইসলাম/
বাংলাদেশ রেলওয়ে নতুন যাত্রীবাহী রেলকোচ (বগি) তৈরীর যুগে প্রবেশ করতে যাচ্ছে। আমদানি নির্ভর রেলওয়েকে স্বয়ংসম্পূর্ণ করতে প্রথমবারের মত কোচ তৈরীর এমন উদ্যোগ গ্রহণ করেছে বলে রেলপথ মন্ত্রণালয়। কোচ তৈরির এ নতুন কারখানা সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানায় অভ্যন্তরে নির্মাণ করা হবে। প্রাথমিক জরিপে রেল কারখানায় অভ্যন্তরে নতুন কারখানার স্থান নির্বাচন করা হয়েছে। ইতোপূর্বে এর সম্ভাব্যতা যাচাই করেছে ভারতীয় বিশেষজ্ঞ দল।

সূত্র মতে জানা যায়, ভারতীয় দুইশ কোটি ডলার ঋণের আওতায় সৈয়দপুর রেল কারখানায় নির্মিত হবে নতুন ক্যারেজ ওয়ার্কশপ। এ ক্যারেজ ওয়ার্কশপে নতুন যাত্রীবাহি কোচ তৈরি করা হবে। ঋণের এ অর্থ ওয়ার্কশপ নির্মাণে ব্যবহার করা হবে। এ ওয়ার্কশপ থেকে তৈরি কোচ রেলওয়ের ৫০ ভাগ কোচের চাহিদা মেটাবে। ওয়ার্কশপ নির্মাণে ব্যয় ধরা হয়েছে ১০ কোটি ৫০ লাখ ডলার। স্থানীয় মুদ্রায় যা প্রায ৮০৪ কোটি টাকা।রেলওয়ে কোচ কারখানা অভিজ্ঞ ভারতীয় কোম্পানী, দেশীয় প্রতিষ্ঠানের সহায়তায় নির্মাণ করা হবে ওই ওয়ার্কশপ। রেলপথ মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে ঋণ চুক্তির শর্ত চুড়ান্ত করতে ভারতের ঋণদাতা প্রতিষ্ঠান এক্সিম ব্যাংকে সমঝোতা করতে ৯ মাস সময় লেগেছে। এ বছরের মার্চে এক্সিম ব্যাংকের সাথে রেলপথ মন্ত্রণালয়ের ঋণ চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। গত ২০ জুন ওই প্রকল্পের চুড়ান্ত অনুমোদন দেয় ভারতের এক্সিম ব্যাংক। ফলে ঋণের শর্ত নিয়ে জটিলতার অবসান হওয়ায় ওয়ার্কশপ নির্মাণে আর কোন বাধা নেই। শিগগিরই ওয়ার্কশপ উন্নয়নের কাজ শুরু হবে।

নতুন সমঝোতার পর ওয়ার্কশপ নির্মাণে ঋণের শর্ত শিথীল করা হয়েছে। শর্তের মধ্যে আছে ঋণের অর্থের ৬৫% শতাংশ মেশিনারী মালামাল ও সেবা ভারত থেকে এনে করতে হবে। আর বাকি ৩৫% অর্থ রেলওয়ে স্থানীয়ভাবে ব্যবহার করতে পারবে। রেলওয়ের দায়িত্বশীল জানায়, ক্যারেজ ওয়ার্কশপে কোচ তৈরি শুরু হলে রেলওয়ের কোচ সংকট থাকবে না। একই সঙ্গে কোচের আমদানি ৫০ ভাগে নেমে আসবে। এতে সাশ্রয় হবে রেলওয়ের বাজেট। একই সঙ্গে কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে মানুষের।
নীলফামারী প্রতিনিধি/১২ই আগস্ট, ২০১৬ ইং