বুধবার  ২৫শে এপ্রিল, ২০১৮ ইং  |   বুধবার  ১২ই বৈশাখ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

এইমাএ পাওয়া

শিক্ষক যদি জঙ্গিবাদের উৎসের প্রেরনা হয় তাহলে বিপদগামী পথ থেকে শিক্ষার্থীদের রক্ষা করা যাবে না-পুলিশ সুপার চাঁদপুর

জুলাই ৩০, ২০১৬

পুলিশ সুপার শামসুন্নাহার

মাজহারুল ইসলাম অনিক/

চাঁদপুর জেলা পুলিশ সুপার শামসুন্নাহার বলেছেন, বিশ^ব্যাপি ইসলামকে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য ইসলামের শত্রুপক্ষ আন্তর্জাতিক ভাবে ষরযন্ত্র চালাচ্ছে। বাংলাদেশের মানুষ জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাসী কর্মকান্ডকে পশ্রয় দেয় না এবং দিবে না। ইসলাম কখনো জঙ্গিবাদ ও মানুষ হত্যা সমর্থন করে না। গুলশানে আল্লাহু আকবার বলে বিদেশীদের আলাদা করে তাদের হত্যা করা হলো। তারাই আবার শোলাকিয়ায় ঈদের জামাতে মুসলমানদের হত্যা করতে গেল। এরা কি সত্যিকার অর্থে ইসলাম কায়েমের জন্য এই কাজ করছে।

প্রতিষ্ঠান পরিচালনাকারীদের উদ্দেশ্যে বলেন, রাষ্ট্রের দেয়া শিক্ষা ব্যবস্থাকে উপেক্ষা করে, আপনারা প্রতিষ্ঠানটিতে অন্য শিক্ষা প্রদান করে থাকেন বলে অভিযোগ রয়েছে। এ ব্যাপারে সাবধান হওয়ার জন্য পরামর্শ প্রদান করে তিনি বলেন এই অভিযোগ যেন মিথ্যা হয়।

এই প্রতিষ্ঠানটি সুনামধন্য। তাই ভালো শিক্ষার একটি কারখানা হবে বলে আমি আশা করবো। মনে রাখবেন, শিক্ষা গ্রহনের জন্য শিক্ষকদের বিশ^াস করে আমাদের সন্তানকে আপনাদের কাছে দিয়ে যাই। আর সেই শিক্ষক যদি জঙ্গিবাদের উৎসের প্রেরনা হয়। তা হলে শত চেস্টা করেও অভিবাবকরা তার সন্তানকে বিপদগামী পথ থেকে রক্ষা করতে পারবে না। কারণ শিক্ষার্থীরা শিক্ষকের শিক্ষাদান কে বেশী প্রাধান্য দিয়ে থাকে। তাই শিক্ষদের বলা হয় দেশ গড়ার কারিগর।

ইসলাম সম্পর্কে তিনি বলেন, পৃথিবীর সর্বশ্রেষ্ঠ ধর্মগ্রন্থ হচ্ছে আল কোরআন। আমরা যারা মুসলমান তাদের পবিত্র কোরআন শরীফের বাইরে যাওয়ার কোনো সুযোগ নেই। শুধুমাত্র কোরআন শরীফ কে অনুসরণ করলে আমরা একটি সুন্দর পথের সন্ধান পাবো।

পুলিশ সুপার বলেন, আমাদের কাছে স্পষ্ট বাংলাদেশ কে অকার্যকর করতে আন্তর্জাতিক ষরযন্ত্রকারীদের সাথে দেশীয় ষরযন্ত্রকারীরা একত্রিত হয়ে এই জঙ্গি কর্মকান্ড চালাচ্ছে। আমাদের ভয় পাবার কিছ ুনেই। আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। কারা এই ষরযন্ত্রকারী তাদেরকে সরকার চিহ্নিত করছে । তাদের মূলসহ নিচ্ছিন্ন করার জন্য কাজ করছে সরকার। এখন আমাদের ভয় এক জায়গায়। আমাদের সন্তানদেরকে তারা যেন ইসলামের ভুল ব্যখ্যা দিয়ে বিপদগামী করতে না পারে। সেইদিকে আমাদের প্রতিটি ঘরের অভিবাকদের নজর দিতে হবে।

শনিবার সকালে শহরের আল-আমিন স্কুল এন্ড কলেজে জঙ্গি তৎপরতা রোধে শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের করনীয় শীর্ষক আলোচনায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে পুলিশ সুপার এ কথাগুলো বলেন।

প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ মাহবুবুর রহমানের সভাপতিত্বে ও উপাদক্ষ রুহুল আমিনের পরিচালনায় অন্যান্যেও মধ্যে বক্তব্য রাখেন, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আব্দুল হাই, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আশ্রাফুজ্জামান, শিক্ষা অধিদপ্তরের কুমিল্লা আঞ্চলিক উপ-পরিচালক মোহাম্মদ হোসেন খান, জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার শফিউদ্দিন আহমেদ, চাঁদপুর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওয়ালীউল্লাহ ওলী, পৌর কমিউনিটি পুলিশিং এর সমন্বয়ক শেখ মনির হোসেন বাবুল, মুন্সিরহাট কলেজের অধ্যক্ষ এম এ মালেক, আল-আমিন একাডেমী স্কুল এন্ড কলেজের সহকারি অধ্যাপক মুকবুল হোসেন, অভিভাবক আলি আহমেদ সরকার ও একাদশ শ্রেণীর ছাত্র মেহেদি হাসান প্রমুখ। এ সময় প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক, অধ্যায়নরত শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা উপস্থিত ছিলেন।
চাঁদপুর প্রতিনিধি/ ৩০শে জুলাই, ২০১৬ ইং