মঙ্গলবার  ২৪শে এপ্রিল, ২০১৮ ইং  |   মঙ্গলবার  ১১ই বৈশাখ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

এইমাএ পাওয়া

বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে বুকে ধারণ করে সকল অপশক্তিকে রুখে দিতে হবে, চাঁদপুর জেলা আওয়ামী লীগের শোক সভায়ঃডা. দীপু মনি এমপি

আগস্ট ১৮, ২০১৬

ডা. দীপু মনি এমপি

মাজহারুল ইসলাম অনিক/চাঁদপুর প্রতিনিধি/ 

জাতীর জনক বঙ্গবন্ধুর ৪১তম শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে চাঁদপুর জেলা আওয়ামী লীগের মাস ব্যাপী কর্মসূচির অংশ হিসেবে শোকসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে জেলা শিল্পকলা একাডেমী মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত আলোচনায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন, সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডা. দীপু মনি এমপি। জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও পৌর মেয়র নাছির উদ্দিন আহমেদের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক আবু নঈম পটোয়ারী দুলাল।

ডা. দীপু মনি এমপি তার বক্তব্যে বলেন, বঙ্গবন্ধু এমন একজন নেতা যিনি কারো কাছে মাথা নত করেন নি। তিনি স্বাধীনতার স্বপ্ন নিজের বুকের মাঝে লালন করেছেন এবং তা বাস্তবায়ন করতে জাতীকে প্রস্তুত করে তুলেছেন। সব শেষে তার নেতৃত্বে আমরা স্বাধীনতা অর্জন করি। তিনি দেশের জন্য তার পরিবারকে সময় দিতে পারেনি। ছোট্ট শেখ রাসেলকে ঠিক মতো আদর করতে পারেনি। তার এই ত্যাগ আমাদের অনুপ্রানিত করে।

তিনি আরো বলেন, বঙ্গবুন্ধুর স্ত্রী বেগম ফজিলতুননেছা বঙ্গবন্ধুকে সাহস এবং অনুপ্রেরণা দিয়েছেন। ৭ই মার্চ বঙ্গবন্ধু যখন রেসকোর্স ময়দানে ভাষন দিতে যাবে, তখন বেগম মুজিব তার মাথায় হাত দিয়ে বলেছিলেন ‘তোমার দিকে গোটা দেশের মানুষ তাকিয়ে আছে’। এই মহিয়সী নারী শুধুমাত্র ছোট বেলা থেকে তার সাথেই ছিলেন না, তিনি মৃত্যুর সময়ও বঙ্গবন্ধুর সাথে ছিলেন। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পরে তার পরিবারকে নিয়ে নানা রকম বদনাম রটানো হয়েছিলো। যুদ্ধবিদ্ধস্ত দেশকে বিশ্ব দরবারে মাথা উঁচু করে দার করাতে অপ্রাণ সংগ্রাম করেছেন।

তিনি আরো বলেন, অনেকেই আজকে বলে আওয়ামী লীগ বঙ্গবন্ধুকে দলীয় নেতা করেছেন। আপনারা একবার ভেবে দেখুন বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পরে জয় বাংলা, বঙ্গবন্ধু শব্দটি উচ্চারণ করতে পারেনি। আওয়ামী লীগ দীর্ঘ ২১ বছর জয় বাংলা আর বঙ্গবন্ধু শব্দটি বুকের মধ্যে আগলে রেখেছে। এই শ্লোগান আর নামটি বুকের মধ্যে ধারণ ও লালন করে আওয়ামী লীগ দেশের নেতৃত্ব দিচ্ছে। একাত্তর, পঁচাত্তর, দুই হাজার এক-এর ক্ষুনিরা বঙ্গন্ধুকে স্বীকার করেনি। আজকে তাদের প্রত্যক্ষ মদদে দেশব্যাপী সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ করা হচ্ছে। বিশ্বের সকল দেশে জঙ্গিবাদ মোকাবেলায় সরকারকে সহযোগীতা করছে। কিন্তু শুধুমাত্র এই দেশেই বিএনপি জামায়াত সরকারকে সহযোগীতা না করে উল্টো ব্যর্থ সরকার বলছে। এরা ক্ষমতায় থাকাকালিন সময়ে, এবং ক্ষমতা থেকে সরে যাওয়ার পরেও জঙ্গিবাদকে মদদ দিচ্ছে। এদেরকে প্রতিহত করতে হবে।

ডা. দীপু মনি বলেন, বিএনপি জামায়াত ইসলামের ভুল ব্যক্ষা দিয়ে জঙ্গিবাদ করছে। তাদের মধ্যে ইসলামে সঠিক শিক্ষা নেই বলেই তারা এটি করছে। পবিত্র কোরআনে বার বার ক্ষমার কথা, মানুষের পাশে দাড়ানো কথা, ধর্ম নিয়ে বাড়াবাড়ি না করার কথা বলা আছে। সেখানে যারা এর ভূল ব্যাখা দিয়ে মানুষ হত্যা করছে তাদের প্রতিহত করতে হবে। আজকে আমাদের জাতীর পিতা কাছে এবং তার কন্যার কাছে শিক্ষা নিতে হবে। জননেত্রী শেখ হাসিনার শোককে শক্তিতে রুপান্তরিত করে নিজের সুখকে দেশের জন্য নিজেকে উৎস্বর্গ করেছেন। মানুষের কল্যানকে ভ্রত হিসেবে নিয়ে দেশপ্রেমে উজ্জিবিত হতে হবে। বাংলাদেশ আজকে সকল বিভাগে এগিয়ে যাচ্ছে। এই অগ্রযাত্রাকে অব্যাহত রাখতে হলে আমাদের সকলকে বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে বুকে ধারণ করে সকল অপশক্তিকে রুখে দিতে হবে।
পৌর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আকতার হোসেন বাচ্চু পাটোয়ারীর পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহ-সভাপতি ইউছুফ গাজী, ওচমান গণি পাটোয়ারী, শহীদ উল্যাহ মাস্টার, যুগ্ম সম্পাদক অ্যাড. জহিরুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক তাফাজ্জল হোসেন এসডু পাটোয়ারী, অ্যাড. মজিবুর রহমান ভূইয়া, আইন বিষয়ক সম্পাদক অ্যাড. রুহুল আমিন, শিল্প ও বানিজ্য বিষয়ক সম্পাদক ইঞ্জিনিয়র আ. রব ভূইয়া, দপ্তর সম্পাদক অজোয় কুমার ভৌমিক, উপদেষ্টা আ. রশিদ সরর্দার, আ’লীগ নেতা অ্যাড. রনজিত রায় চৌধুরী, পৌর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রাধা গৌবিন্দ ষোষ, সাধারণ সম্পাদক আমিনুর রহমান বাবুল, সদর থানা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আলী এরশাদ মিয়াজী, জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক মিজানুর রহমান কালু ভূইয়া, যুগ্ম আহ্বায়ক সালাউদ্দিন মোহাম্মদ বাবর, আবু পাটোয়ারী, জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সদস্য সচিব অধ্যাপিকা মাসুদা নূর খান, কৃষকলীগ নেতা শাহজাহান চোকদার, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহ্বায়ক এসএম জয়নাল আবেদীন, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি শেখ মো. মেতালেব, জেলা যুব মহিলা লীগের সভাপতি ফরিদা ইলিয়াস, বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের জেলা শাখার সভাপতি অধ্যাপক মাসুদ আহমেদ, বঙ্গবন্ধু সমাজ কল্যান পরিষদ জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক ইফতে খায়রুল আলম মাসুম। এসময় জেলা আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, মহিলা আওয়ামী লীগসহ অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।
বৃহস্পতিবার ১৮ই আগস্ট, ২০১৬ ইং