বুধবার  ২০শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং  |   বুধবার  ৫ই আশ্বিন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

এইমাএ পাওয়া

নারায়ণগঞ্জের আলোচিত সাত খুন মামলার পরবর্তী স্বাক্ষ্য আগামী ২২ আগষ্ট

আগস্ট ১৬, ২০১৬

সাত খুন মামলা

নারায়ণগঞ্জের আলোচিত সাত খুন মামলায় পাঁচ পুলিশ কর্মকর্তার স্বাক্ষ্য গ্রহণ ও জেরা শেষে হয়েছে। মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০ টা থেকে দুপুর ২ টা পর্যন্ত পাঁচ জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক সৈয়দ এনায়েত হোসেনের আদালতে মামলার প্রধান আসামী নূর হোসেন ও র‌্যাবের সাবেক তিন কর্মকর্তা, লে.কর্নেল তারেক সাঈদ মোহাম্মদ, কমান্ডার এম এম রানা ও মেজর আরিফ হোসেনসহ ২৩ আসামীর উপ¯ি’তে এ স্বাক্ষ্য গ্রহন অনুষ্টিত হয়। পরে আদালত আগামী ২২ আগষ্ট পরবর্তী স্বাক্ষ্যর দিন ধার্য্য করেছে।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবি ওয়াজেদ আলী খোকন জানান , সাড়ে ১০ টায় থেকে দুপুর ২ টা পর্যন্ত তৎকালীন সময়ে বিভিন্ন থানায় কর্মরত পুলিশের এস আই আবদুল আউয়াল, এস আই আবুল খায়ের, এস আই মহিবুল্লাহ, এস আই হারুন মিয়া এবং এ এস আই আতাউর রহমান এর স্বাক্ষ্য গ্রহণ করা হয়। পরে আসামীপক্ষের আইনজীবিরা তাদের জেরা করেন। স্বাক্ষ্য প্রদানকারী পাঁচ পুলিশ কর্মকর্তা সাত খুনের ঘটনার পর বিভিন্ন সময়ে দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে আসামীদের গ্রেফতারের পর তাদের ঠিকানা ও বিস্তারিত পরিচয় শনাক্তসহ যাবতীয় ব্যক্তিগত তথ্য সংগ্রহের দায়িত্ব পালন করেছেন। এদের মধ্যে এস আই আবদুল আউয়াল খন্ডকালীন তদন্ত কর্মকর্তা ছিলেন। তিনি আরো বলেন, আন্তরিকতা ও আগ্রহের সাথে মামলার কার্যক্রম দ্রুত এগিয়ে নিয়ে যাওয়া হ”েছ। এক শ’ ২৭ জন সাক্ষ্যির মধ্যে ৩/৪ জন সাক্ষ্যি ইতোমধ্যে মারা গেছেন। ৮ জন সাক্ষ্যি বিদেশে আছেন। আর ক’জন আছে যা গুরুত্বপূর্ণ নয়। সুতরাং পরবর্তী সাক্ষ্যি এক মাত্র মূল তদন্তকারি কর্মকর্তা মামুনুর রশিদ দেবেন ২২ আগষ্ট। তবে একজন সাক্ষ্যিকে রিকল করা হতেপারে।

এর আগে সকালে কঠোর নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে এই মামলার প্রধান আসামী নূর হোসেন ও র‌্যাবের সাবেক তিন কর্মকর্তা, লে.কর্নেল তারেক সাঈদ মোহাম্মদ, কমান্ডার এম এম রানা ও মেজর আরিফ হোসেনসহ ২৩ আসামীকে আদালতে হাজির করা হয়। এই নিয়ে ৭ খুনের ঘটনায় দায়েরক…ত দুইটি মামলায় মোট ১২৭ জন স্বাক্ষীর মধ্যে ১০৫ জনের স্বাক্ষ্য গ্রহণ সম্পন্ন হলো।

২০১৪ সালের ২৭ এপ্রিল ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোডের ফতুল্লার লামাপাড়া এলাকা থেকে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলাম সিনিয়র আইনজীবি চন্দন সরকারসহ ৭ জনকে অপহরণ করা হয়। এর তিন দিন পর শীতলক্ষ্যা নদী থেকে তাদের লাশ উদ্ধার করা হয়।
নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি/১৬ই আগস্ট, ২০১৬ ইং