বুধবার  ২৫শে এপ্রিল, ২০১৮ ইং  |   বুধবার  ১২ই বৈশাখ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

এইমাএ পাওয়া

চুনারুঘাট খোয়াই নদীর ব্রীজ মুখ ঝুঁকিপূর্ণঃযে কোনো সময় দর্ঘটনার আশঙ্কা – পথচারী ও যাত্রীদের মনে আতঙ্ক

জুলাই ১৭, ২০১৬

খোয়াই নদীর ব্রীজ

এম এস জিলানী আখনজীঃ হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলার ২নং আহম্মদাবাদ ইউনিয়নের (রাজার বাজার-বাসুল্লা বাজার সড়ক) রোডের খোয়াই নদীর ব্রীজটির মুখ ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে মরণফাঁদে পরিনত হয়েছে। এ ব্রীজটি দিয়ে প্রতিদিন অসংখ্য যানবাহন ও হাজার-হাজার পথচারী আসা-যাওয়া করছে। ইতোমধ্যে ব্রীজটির মুখে অল্প-অল্প করে বড় ধরনের গর্ত সৃষ্টি হয়েছে। অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ এই ব্রীজটির মুখ ভেঙে বড় ধরনের দুর্ঘটনার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। কিন্তু কর্তৃপক্ষের কোন নজর নেই।

সরেজমিনে গিয়ে ব্রীজটির ভিত্তি প্রস্তর প্লেইটে খোদাই করা লিখাতে দেখা যায়। এল.জি.ইডির বাস্তবায়নে ৮’ই জানুয়ারী ০৪ইং সালে, সাবেক গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের নৌপরিবহন মন্ত্রনালয়ের মাননীয় মন্ত্রী, বীর প্রতীক লে: কর্নেল (অব:) আকবর হোসেন (রাজার বাজার-বাসুল্লা বাজার সড়ক) রোডে খোয়াই নদীর উপর ‘রাজার বাজার ব্রীজ’ ভিত্তি প্রস্তর স্থাপনা করেন।

জানা গেছে, চুনারুঘাট উপজেলা থেকে প্রায় ৬ কি: মি: দক্ষিণে আমুরোড, শুকদেবপুর, রাজার বাজার, কালিশীরি, রাণীকোর্ট ও উপজেলার সাথে বাসুল্লাবাসীর যোগাযোগ সুবিধার্থে ১৮’ই অক্টোবর ০৬ইং সালে এল.জি.ইডির বাস্তবায়নে আহম্মদাবাদ ইউনিয়নের প্রাণ কেন্দ্র রাজার বাজার পয়েন্ট থেকে অর্ধেক কিলোমিটার পূর্বদিকে রাজার বাজার সরকারী স্কুল ঘেঁষে (রাজার বাজার-বাসুল্লা বাজার সড়ক) রোডের ১২১মি: ব্রীজ নির্মাণ করা হয়। ব্রীজ নির্মাণের শুভ উদ্বোধন করেছিলেন, সাবেক সংসদ সদস্য আলহাজ্ব সৈয়দ মো: ফয়সল। কিন্তু নির্মাণের পর থেকে কোন প্রকার সংস্কার না করায় ব্রীজটির মুখ বর্তমানে অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

জনগুরুত্বপূর্ণ দিক বিবেচনা করে নতুন ভাবে ব্রীজটির মুখ নির্মাণ করা খুবই জরুরী হয়ে পড়েছে। খোয়াই নদীর উপর ঝুঁকিপূর্ণ এই ব্রীজটির মুখ দীর্ঘদিন থেকেই আতঙ্ক হয়ে দাঁড়িয়েছে। যে কোনো সময় পথচারী ও যানবাহনকারী যাত্রী ব্রীজটির মুখে উল্টে পরে কখন কে, কীভাবে মারা যাবে তা নিয়ে আতঙ্ক বিরাজ করছে সবার মনে। প্রতিদিন হাজার-হাজার লোকজন পারাপার হয় এই ব্রীজ দিয়ে। উপজেলার বাসুল্লাবাসীর সর্ববৃহৎ হাটবাজার চুনারুঘাট। এই ব্রীজটি রাজার বাজার হাট, আমুরোড বাজার হাট ও চুনারুঘাট হাটের বিভিন্ন ব্যবসায়ীরা মালামাল পরিবহনে ভারী যানবাহন ব্যবহার করতে ব্রীজটির মুখের আতঙ্ক নিয়ে ভয় পাচ্ছেন। যানবাহন পারাপারের সময় ব্রীজটির মুখে আসলেই ভয়ে থরথর করে সারা শরীল কেঁপে উঠে। তাই তড়িৎ গতিতে ব্রীজটির মুখ নির্মাণ করা জরুরী। অথচ সংস্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ সম্পূর্ণ নীরব ভূমিকা পালন করছে। অপরদিকে যানবাহনকৃত গাড়ীতে তার ক্ষমতা থেকে ৩ গুন বেশি মালামাল লোড করার ফলে খোয়াই নদীর ব্রীজটির মুখ আরও নাজুক অবস্থায় পড়েছে। তবে অল্প-অল্প করে বিশাল গর্ত সৃষ্টি হয়ে সারা খোয়াই নদীর ব্রীজ নদী গর্ভে বিলীন হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

চুনারুঘাট (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি/ ১৭ই জুলাই, ২০১৬ ইং