মঙ্গলবার  ২৪শে এপ্রিল, ২০১৮ ইং  |   মঙ্গলবার  ১১ই বৈশাখ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

এইমাএ পাওয়া

গোপালগঞ্জের কাশিয়ানীতে চিকিৎসকের অবহেলায় প্রসূতির মৃত্যুর অভিযোগ : ক্লিনিক ভাংচুর

জুলাই ১৯, ২০১৬

প্রসূতির মৃত্যুর অভিযোগ

এম শিমুল খান : গোপালগঞ্জ জেলার কাশিয়ানী উপজেলায় একটি ক্লিনিকে চিকিৎসকের ভুল চিকিৎসার কারনে শম্পা বেগম (২৮) নামে এক প্রসূতির মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় বিক্ষুব্ধ লোকজন ওই ক্লিনিকে ব্যাপক ভাংচুর চালিয়েছে। গতকাল সোমবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭ টায় উপজেলা সদরে নুর উদ্দিন মেমোরিয়াল ক্লিনিকে এ ঘটনা ঘটে। নিহত শম্পা বেগম ফরিদপুর জেলার আলফাডাঙ্গা উপজেলার বড়বাগ গ্রামের সৈয়দ নিয়ামূল আলীর স্ত্রী।

নিহতের স্বজনরা অভিযোগ করে বলেন, সোমবার দুপুরে অন্তসত্বা শম্পাকে চিকিৎসার জন্য নুর উদ্দিন মেমোরিয়াল ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়। সন্ধ্যা ৭ টার দিকে কাশিয়ানী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ মোঃ মনোয়ার হোসেন ও আবাসিক মেডিকেল অফিসার রায়হান ইসলাম ইমন সিজারিয়ান অপারেশন করেন। অপারেশনে প্রসূতি শম্পা বেগমের নাড়ি কেটে ফেলেন। এতে অপারেশন কক্ষেই শম্পা বেগমের মৃত্যু ঘটে হয়। নবজাতক শিশুটি সুস্থ আছে বলে নিহতের পরিবারেরা জানিয়েছেন।

এ ঘটনায় স্থানীয় বিক্ষুব্ধ লোকজন ও নিহতের স্বজনরা ওই ক্লিনিকে ব্যাপক ভাংচুর চালায়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করে।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত চিকিৎসক কাশিয়ানী উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার-পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ মোঃ মনোয়ার হোসেনের সাথে মোবাইল ফোনে বার বার যোগাযোগ করার চেষ্টা করলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

কাশিয়ানী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ কে এম আলীনুর জানান, ডাক্তারের ভুল চিকিৎসায় রোগীর মৃত্যু হয়েছে বলে খবর পেয়ে প্রসূতির স্বজনরা উত্তেজিত হয়ে নুর উদ্দিন মোমোরিয়াল ক্লিনিকে ভাংচুর করে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

উল্লেখ্য, গত ১৫ জুলাই আরিফা বেগম (২৫) নামে এক প্রসূতিকে ওই ক্লিনিকের ম্যানেজার মিহির বিশ্বাস ও আয়া লিপি বেগম গ্রাম্য পদ্ধতিতে বাচ্চা প্রসব করান। এতে ওই নবজাতকের মৃত্যু হয় বলে অভিযোগ রয়েছে। আরিফা বেগম একই উপজেলার টিটা গ্রামের পলাশ শেখের স্ত্রী।
গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি/১৯শে জুলাই, ২০১৬ ইং