বুধবার  ২৫শে এপ্রিল, ২০১৮ ইং  |   বুধবার  ১২ই বৈশাখ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

এইমাএ পাওয়া

গুলশানের রেস্তোরাঁয় হামলার প্রতিবাদে ১১ জুলাই কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে প্রতিরোধ সমাবেশ, সন্ত্রাসবিরোধী কমিটির ঘোষণা!

জুলাই ৪, ২০১৬

nasim

গুলশানের রেস্তোরাঁয় হামলার ঘটনার প্রতিবাদে ১১ জুলাই কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে প্রতিরোধ সমাবেশ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ১৪-দলীয় জোট। পাশাপাশি সারা দেশে সন্ত্রাসবিরোধী কমিটি করবে এই জোট।

গুলশানে জঙ্গি হামলার পর উদ্ভূত পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনার জন্য গত রোববার আওয়ামী লীগের ধানমন্ডি কার্যালয়ে ১৪ দলের বৈঠক হয়।

বৈঠক সূত্র জানায়, আইএস থাকা না-থাকার প্রসঙ্গ এড়িয়ে এরপর ১৪ দলের নেতারা গুলশানে হামলার পর বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার দেওয়া বিবৃতির সমালোচনা করেন। আওয়ামী লীগের একজন দায়িত্বশীল নেতা গুলশানের হামলার খবর প্রচারে গণমাধ্যমের ভূমিকারও সমালোচনা করেন। বৈঠকে উপস্থিত তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনুকে উদ্দেশ করে ওই নেতা দাবি করেন, তথ্য মন্ত্রণালয়ের ভূমিকার অভাবেই গণমাধ্যম এমনটা করেছে।

বৈঠক শেষে সংবাদ সম্মেলনে মোহাম্মদ নাসিম ১১ জুলাই কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে প্রতিরোধ সমাবেশ করার ঘোষণা দেন। এ ছাড়া ১২ থেকে ২১ জুলাই পর্যন্ত দেশের সব ইউনিয়ন-উপজেলা-জেলায় কবি-সাহিত্যিক, সাংবাদিকসহ সর্বস্তরের জনগণকে সম্পৃক্ত করে সন্ত্রাসবিরোধী কমিটি গঠনের সিদ্ধান্ত জানান। ২৪ জুলাই থেকে পরবর্তী সাত দিনব্যাপী ১৪ দলের পক্ষ থেকে সারা দেশে প্রতিবাদ সমাবেশ করারও সিদ্ধান্ত হয়েছে।

গুলশানের ওই হামলার সঙ্গে কারা জড়িত থাকতে পারে—সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে মোহাম্মদ নাসিম বলেন, ‘যে ছয়জন সন্ত্রাসী নিহত হয়েছে, তারা সবাই এখানকার লোক এবং এখানকার সন্তান। কারা এর সঙ্গে জড়িত, তা আপনারাও বুঝতে পারছেন। প্রশিক্ষিত শিবির যারাই, তারাই এ ঘটনাগুলো ঘটাচ্ছে।’
খালেদা জিয়ার বিবৃতির সমালোচনা করে মোহাম্মদ নাসিম বলেন, ‘এটা একটি রক্তাক্ত অভ্যুত্থান। এ ভাষায় তিনি বিবৃতি দিয়ে প্রকারান্তরে খুনিদের পক্ষ অবলম্বন করেছেন।’
সংবাদ সম্মেলন শেষে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটনমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন বলেন, ‘এ পর্যন্ত গুপ্তহত্যার যত ঘটনা ঘটেছে, তারা প্রত্যেকে পুলিশি জিজ্ঞাসাবাদে বলেছে, তারা আগে শিবির করত। জামায়াতের পক্ষ থেকে বিশাল অঙ্কের অর্থ সহায়তা করে এ সমস্ত সন্ত্রাসী তৎপরতায় সহায়তা করা হচ্ছে। তিনি বলেন, বাংলাদেশে আইএস নেই। কিন্তু আইএসের চিন্তার অনুগামী বহু লোক এখানে থাকতে পারে।

১৪ দলের বৈঠকে আরও উপস্থিত ছিলেন তথ্যমন্ত্রী ও জাসদের (একাংশ) সভাপতি হাসানুল হক ইনু, আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য সাহারা খাতুন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ ও জাহাঙ্গীর কবির নানক, সাংগঠনিক সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, কমিউনিস্ট কেন্দ্রের আহ্বায়ক ওয়াজেদুল ইসলাম খান প্রমুখ।সূত্র- প্রথম আলো।

ই বাংলা পত্রিকা/ জাতীয় ডেস্ক- ৭/৪/২০১৬