শুক্রবার  ২৭শে এপ্রিল, ২০১৮ ইং  |   শুক্রবার  ১৪ই বৈশাখ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

এইমাএ পাওয়া

আলফাডাঙ্গায় ভুল চিকিৎসায় রোগী মৃত্যুর অভিযোগ

আগস্ট ১১, ২০১৬

মৃত্যুর অভিযোগ

বিপ্লব কুমার দাস (শাওন)/

ফরিদপুরের আলফাডাঙ্গা সদরে অবস্থিত নাজমা মেডিকেয়ারে চিকিৎসকের অবহেলায় আমেনা বেগম (৬০) নামে এক নারীর মৃত্যুর অভিযোগ পাওয়া গেছে। তবে অভিযোগ অস্বীকার করেছেন চিকিৎসক এবং কিনিক কর্তৃপক্ষ।

অভিযোগে জানাগেছে, আমেনা বেগম ২০ জুন আলফাডাঙ্গায় অবস্থিত নাজমা মেডিকেয়ারে ভর্তি হয়। ভর্তি হওয়ার পর তরিঘরি করে নাম মাত্র পরীক্ষা নিরীক্ষা শেষে ডাক্তার ফজলুল করিম, আকবার আলী জরায়ু টিউমার, জরায়ু অপারেশন ও পিত্তথলী পাথর হয়েছে এবং তিনটি অপারেশন একসাথে করতে হবে বলে রোগীর স্বজনদের জানান। রোগীর ছেলে জুয়েল শেখ তার মা’র তিনটি রোগের সংবাদ শুনে কোন উপায় বুঝতে না পেরে দায়িত্বভার ডাক্তারের উপর ছেড়ে দিলে প্রথমে ওই রোগীর জরায়ু অপারেশন করেন ডাক্তার। ক্লিনিকে ৬দিন ভর্তি থাকার পর ২৬ জুন রবিবার রোগীকে রিলিজ দেওয়া হয়। পরে রোগীর কোন শারীরিক পরিবর্তন না হওয়ায় ২২ জুলাই শুক্রবার আবার ওই ক্লিনিকে ভর্তি হয়। পরে একই ডাক্তার দায়সারা চিকিৎসা করায় রোগীর অবস্থা অবনতি হওয়ায় ২৭ জুলাই বুধবার প্রথমে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পরে ঢাকা সিটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

রোগির ছেলে জুয়েল সাংবাদিকদের জানান, নাজমা মেডিকেয়ারের ডাক্তার ও কর্তৃপক্ষের অবহেলায় ভুল অপারেশন করার কারণে অন্য হাসপাতালে নিয়েও মাকে বাঁচানো সম্ভব হলো না।
জুয়েল আরো বলেন, জরায়ু অপারেশন করতে গিয়ে মলদ্বারের নারী কেটে ফেলার কারণে আমার মা মারা যায়।

আমেনা বেগম ৯ আগস্ট মঙ্গলবার বোয়ালমারী উপজেলায় দেউলি গ্রামে নিজ বাড়ীতে মারা যায়।
স্থানীয় কয়েক ব্যক্তি নামপ্রকাশ না করার শর্তে সাংবাদিকদের বলেন, রোগীর মৃত্যুর সাংবাদ শুনে ক্লিনিক মালিক ও মৃত ব্যক্তির স্বজনদের মধ্যে গোপন সমোঝতা মাধ্যমে দাফন করা হয়েছে।
এ ব্যাপারে কিনিকের ব্যবস্থপনা পরিচালক হারুন অর রশীদ সাংবাদিকদের বিভিন্ন যুক্তিখন্ডন দেখিয়ে বিষয়টি ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করেন।
ফরিদপুর প্রতিনিধি/১১ই আগস্ট, ২০১৬ ইং