মঙ্গলবার  ১৭ই অক্টোবর, ২০১৭ ইং  |   মঙ্গলবার  ২রা কার্তিক, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

এইমাএ পাওয়া

ব্যালন ডি’অর জিতেছেন মেসি।

জানুয়ারি ১২, ২০১৬

ballon 2015, ballon 2016

থিয়েরি অঁরির হাতে মুখবন্ধ সোনালি খামটা গত বছর ছিল । সেপ ব্ল্যাটার পাশে ছিলেন তখনকার ফিফা সভাপতি ।কাল রাতে অঁরি ছিলেন না জুরিখের মঞ্চে, ফিফা সদর দপ্তরের আশপাশে যেতেও নিষেধাজ্ঞা ব্ল্যাটারের! এবার এমন একজন, লিওনেল মেসি আর ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর আগে ব্যালন ডি’অর জিতেছিলেন সর্বশেষ যিনি, তিনি হলেন কাকা এবং সোনালি খাম হাতে, তার পাশে ভারপ্রাপ্ত ফিফার সভাপতি ইসা হায়াতু।
সবার সামনের সারিতে তিনটি উৎফুল্ল এবং প্রস্ফুটিত মুখ—নেইমার, রোনালদো সঙ্গে মেসি । ব্রাজিলীয়ান কাকার হাতেই মুখবন্ধ খামে আছে তাঁদের যেকোনো একজনের নাম। আন্তোনেল্লা রোকুজ্জোকে (মেসির স্ত্রী) একবার ক্যামেরায় দেখাল। নার্ভাস মুখে নিয়ে বসে আছেন থিয়াগোকে (মেসির ছেলে) কোলে নিয়ে। মুচকি এবং রসালো হাসি কাকার মুখে। উপস্থাপক এবং অনুষ্ঠান পরিচালনা করছিলেন আইরিশ অভিনেতা জেমস নেসবিট সে রসিকতা করে বললেন, ‘হয়ে গেছে সময়। খুলে ফেলো খাম, কাকা।’ মুখের হাসিটা মুখে রেখেই ব্রাজিলীয়ান তারকা সোনালি খাম খুললেন। তারপর একটুও নাটকীয়তা বা ভূমিকা না করে ঘোষণা করলেন নামটা, নামটা হলো লিওনেল মেসি!

Ballon D'or 2015,2016

Ballon D’or With Messi

রোনালদো ও নেইমার হাসলেন। খুব আল্প হাসি যদিও, কারন তারাও তো অংশগ্রহনকারী। স্ত্রীকে সাথে চুম্বন এবং ছেলের মাথায় হাত রাখার পর মেসি নেইমারের সঙ্গে গাল মেলালেন প্রথমে, তারপর রোনালদোর সঙ্গে হাত। ব্যালন ডি’অর এর মঞ্চে উঠতে উঠতেই তাঁর মুখের হাসিটা অনেক উজ্জ্বল হয়ে গেছে। ট্রফিটা কাকার হাত থেকে নেওয়ার পর পুরো মুখ ঝলমল করছিল উৎফুল্লতায় । করাটাই স্বাভাবিক। এক এক করে চারবার জিতে যে ব্যালন ডি’অর ট্রফিটা প্রায় নিজের সম্পত্তি বানিয়ে ফেলেছিলেন, সেটাই গত দুই বছর আর না পাওয়া রয়ে গিয়েছিল। জুরিখে কাল মেসি আবার সেই সম্মান, ট্রফি ফিরে পেলেন, ফিরে পেলেন রাজত্ব আর সিংহাসন। এ নিয়ে ৫ বার। সর্বশেষ চূড়ান্ত তালিকাই আশা তিনজনের মধ্যে ৪১ দশমিক ৩৩ শতাংশ ভোট পেয়েছেন আর্জেন্টাইন ও বার্সেলোনার ফরোয়ার্ড। ২৭ ভাগ ভোট পেয়ে ২য় হয়েছেন রোনালদো, ৩য় নেইমার পেয়েছেন ৭ শতাংশ ভোট। ইতিহাসের প্রথম ও একমাত্র ফুটবলার হিসেবে ৫ বার ব্যালন ডি’অর জিতলেন মেসি।হয়তো কিছুটা অনুমিতই ছিল । বার্সেলোনার হয়ে শিরোপা জিতেছেন মেসি গত বছর পাঁচটি । ৪৩ গোলে লা লিগা শেষ করেছেন গত মৌসুমের, চ্যাম্পিয়নস লিগেও ১০ গোল করে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর সঙ্গে সর্বোচ্চ গোলদাতা যৌথভাবে । সব মিলিয়ে ৫২ গোল ৬১ ম্যাচে। তবে গত বছরের মধ্যে বার্সেলোনা যে পাঁচটি ফাইনালে অংশগ্রহণ করে, তাতেই মেসির ৬ গোল। ব্যালন ডি’অর এর মূল অনুষ্ঠান শুরুর আগেও সংবাদ সম্মেলনে এবং রোনালদো বলে ফেলেছিলেন, ‘এবার আমার চেয়ে লিওর সুযোগ বেশি, এটা আমার কাছে আশ্চর্যজনক বা হতাশার নয়। নেইমার, লিও যেকোন একজন পুরস্কারটা পেলে আমি খুব একটা হতাশায় ভুগব বা বিস্মিত হব না।’ ব্যালন ডি’অর অনুষ্ঠান শুরুর আগে আর্সেনাল কোচ আর্সেন ওয়েঙ্গারও বলেছিলেন, ‘এবার ব্যালন ডি’অর জেতা উচিত বার্সেলোনার কোনো খেলোয়াড়েরই । আর বার্সেলোনার কোনো খেলোয়াড় হলে, সেটা মেসিই ।’

Ballon D'or program picture

Messi’s Wife

প্রতিক্রিয়া বা ব্যালন ডি’অর জেতার আনন্দ জানাতে গিয়ে মেসি অবশ্য খুব উচ্ছ্বাস দেখান নি। তবে আগের ২০১৩ ও ২০১৪ এর অনুষ্ঠানে দর্শক হয়ে থাকতে যে মোটেও ভালো লাগেনি সেটা বললেন হাসিমুখেই, ‘২ বছর গ্যালারির দর্শক হয়ে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোকে ট্রফি দেখার পর এই মঞ্চে নিজেকে ফিরাতে পেরে আমি দারুণ আনন্দিত।পাঁচবার হলো এ নিয়ে । ছোটবেলায় আমি যে স্বপ্ন দেখেছিলাম, এটা তার থেকেও অনেক বেশি কিছু।’
এক নজরে
ফিফা ব্যালন ডিঅর
লিওনেল মেসি
বর্ষসেরা কোচ
লুইস এনরিকে

বর্ষসেরা নারী ফুটবলার
কার্লি লয়েড
নারী দলের বর্ষসেরা কোচ
জিল এলিস
পুসকাস পুরস্কার (বর্ষসেরা গোল)
ওয়েন্ডেল লিরা
ফেয়ার প্লে পুরস্কার
শরণার্থীদের সহায়তাকারী সব ফুটবল সংগঠন
ফিফপ্রো বিশ্ব একাদশ ।
গোলরক্ষক—ম্যানুয়েল নয়্যার, ডিফেন্ডার—দানি আলভেজ, সার্জিও রামোস, থিয়াগো সিলভা, মার্সেলো, মিডফিল্ডার—পল পগবা, লুকা মডরিচ, আন্দ্রেস ইনিয়েস্তা, ফরোয়ার্ড—ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো, লিওনেল মেসি, নেইমার।