মঙ্গলবার  ১৭ই অক্টোবর, ২০১৭ ইং  |   মঙ্গলবার  ২রা কার্তিক, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

এইমাএ পাওয়া

গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়ায় পানি বন্দি হাজার হাজার মানুষ আমরা ‘ধাপের উপর রান্দিবাড়ি, ধাপের উপর খাই’

সেপ্টেম্বর ১, ২০১৬

পানি বন্দি হাজার হাজার মানুষ

।। এম শিমুল খান/গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি।।

কয়েকদিনের ভারি বর্ষণে গোপালগঞ্জ জেলার কোটালীপাড়া উপজেলার বিভিন্ন এলাকা প্লাবিত হয়ে পানি বন্দি হয়ে পড়েছে হাজার হাজার সাধারন মানুষ। বেশ কিছু দিন যাবত চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছে হাজার হাজার মানুষ।
বেশ কয়েক দিন হঠাৎ বৃষ্টিতে পানি বৃদ্ধি পেয়ে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। গ্রামীণ রাস্তাঘাট, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ নানা স্থাপনা তলিয়ে গেছে। গৃহপালিত পশু-পাখি নিয়ে গ্রামীণ মানুষের জীবন যাপনে সীমাহীন দুর্ভোগ নেমে এসেছে। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলে ও সরজমিনে ঘুরে এ সব দুর্ভোগের খবর পাওয়া গেছে।

কোটালীপাড়া উপজেলার কলাবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মাইকেল ওঝা বলেন, আমার ইউনিয়নের চকপুকুরিয়া, রামনগর, বৈকণ্ঠপুর, রুথিয়ারপাড়, নলুয়া, কুমরিয়া গ্রাম তলিয়ে গেছে। বর্তমানে ইউনিয়নের পাঁচ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে।

কুশলা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান কামরুল ইসলাম বাদল বলেন, তার ইউনিয়নের ধোড়ার, বানিয়ারী, জামুলা, তিলবাড়ী ও চৌরখুলী গ্রাম প্লাবিত হয়ে অনেক বাড়িঘর ও রাস্তার ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।

রামনগর গ্রামের দুলাল বালার স্ত্রী সুনীতি বালা বলেন, কয়েক দিনের বৃষ্টিতে আমাগো ঘরবাড়ি সব তলিয়ে গেছে। কুচুরি দিয়া ধাপ বানাইয়া এখন আমরা তার উপর হাঁস-মুরগি, গরু-ছাগল নিয়ে থাকি। আমরা এই ধাপের উপর রান্দিবাড়ি, ধাপের উপর খাই।

পিঞ্জুরী ইউনিয়নের পূর্ণবতী গ্রামের অলিউল্লাহ হাওলাদার বলেন, আমার ছয়টি মাছের ঘের তলিয়ে গেছে। এতে আমার প্রায় ২০ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে। ব্যাংক থেকে লোন ও ধারদেনা করে এই ঘেরে মাছ চাষ করেছিলাম। এখন কী করব, কী ভাবে দেনার টাকা শোধ করব ভেবে পাচ্ছি না।

কোটালীপাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) জিলাল হোসেন বলেন, হঠাৎ কয়েক দিনের বৃষ্টিতে পানি বেড়ে যাওয়ায় উপজেলার নিম্নাঞ্চলগুলো প্লাবিত হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলোচনা হয়েছে। প্লাবিত এলাকার জনগণকে আমরা সকল প্রকার সাহায্য করব।

কোটালীপাড়া উপজেলার ১২টি ইউনিয়নসহ পৌর এলাকার নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। তলিয়ে গেছে অনেক গ্রামীণ রাস্তা ও বিভিন্ন প্রাথমিক বিদ্যালয়। উপজেলার প্রায় ৫০ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

ই-বাংলা পত্রিকা/বৃহস্পতিবার-১লা সেপ্টেম্বর,২০১৬ ইং