সোমবার  ২১শে আগস্ট, ২০১৭ ইং  |   সোমবার  ৬ই ভাদ্র, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

এইমাএ পাওয়া

এমপি নুরুল হক ও তার বাহিনীর ভয়ে সাত মাস ধরে চার দেয়ালে আটকে আছে পাইকগাছার আজিজ পরিবার

আগস্ট ৪, ২০১৬

পাইকগাছার আজিজ পরিবার

স্টাফ রিপোর্টার/ 

সংসদ নির্বাচিত হওয়ার একের পর এক দখলবাজীর অভিযোগ উঠে খুলনা ৬ এর আলোচিত সংসদ এ্যাড শেখ মোঃ নুরুল হক ও তার পুত্র শেখ মনিরুল ইসলামের বিরদ্ধে। এলাকাবাসী অনেকে নাম প্রকাশ না করার সর্তে এই প্রতিবেদক কে বলেন এমপি নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে একের পর এক মৎস ঘের, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, জলমহল, ইটভাটা দখল, নিয়োগ বানিজ্য করে তিনি কোটি কোটি অবৈধ সম্পদের পাহাড় গড়েছেন।অভিযোগ আছে স্থানীয় আওয়ামী লীগের অনেক নেতাকে তিনি থোরায় কেয়ার ও করেন না।এছাড়া থানা নির্বাহী কর্মকর্তা কে নিজিস্ব সন্ত্রসী বাহিনি দিয়ে পেটান ও এক গর্ভধারিণী নারীর পেটে লাথি মেরে সন্তান নষ্ট করার অভিযোগ ও আছে তার বিরদ্ধে।

এমপি নুরুল হক ও তার নিজিস্ব সন্ত্রসী বাহিনির ভয়ে কেউ মুখ খুলতে সাহস না পেলেও চলতি বছরের শুরুতে পাইকগাছা পৌরসভার ৪ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পদক প্রবিন নেতা আঃ আজীজের রেকর্ডীয় জমি ও তার শেষ সম্বল বসতভিটার সাথে সরকারী খাস জমি দখল করার প্রয়াসে ব্যপক ভাংচুর করে এবং বাড়ির মহিলা ও শিশুদের বাড়ির মধ্যে জোর পূর্বোক আটকে রেখে এমপি নুরুল হক নিজে উপস্থিত থেকে বাড়ির চার পাশে প্রায় জেলখানা সমান উচু প্রাচির নির্মান করে। এমনকি আজিজের বসত ঘরের একটি রুমে তালা ঝুলিয়ে দেয়।সরজমিনে গিয়ে রুমটি তালা বদ্ধ পাওয়া গেছে। এ সময় আজীজ পরিবারের ১৬ সদস্যর নামে মিথ্যা চাঁদাবাজির মামলায় ফাসালে জেল ফেরত আজীজ ও তার পরিবার এমপি নুরুল হক ও তার সন্ত্রাসী বাহিনী এবং দখলবাজীর বিরুদ্ধে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা,সরাষ্ট্রমন্ত্রী,পুলিশের আইজি, বিভিন্ন মানবাধিকার সংগঠন ও দলীয় উদ্ধতন নেতা কর্মীর কাছে অভিযোগ দিলে এমপি নুরুল হকের বিরুদ্ধে নড়েচড়ে বসে।
মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর শেখ হাসিনা জরুরি ভিত্তিতে তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা গ্রহনের নিদ্দেশ দেন পুলিশকে। পুলিশ কর্মকর্তারা দফায় দফায় সরজমিনে তদন্তে যান এবং এমপি নুরুল হকের দখলবাজীর ব্যপক প্রমান পান বলে জানা গেছে। কিন্তু আজও নির্যাতিত আজীজ প্রতিকার তো দুরে থাক দীর্ঘদীনের যাতয়াতের পথটি উন্মুক্ত করতে না পেরে চারদেয়ালের মধ্যে বন্দী জীবন যাপন করছে বলে অভিযোগ করেন আজীজের পুত্র আসাদুল ইসলাম।

আপত্তি কেসের নুটিশ

আপত্তি কেসের নুটিশ

অন্যদিকে উক্ত জমি এমপি নুরুল হকের অবৈধ দখল উন্মুক্ত না করে জমির মালিকানা দাবী করে বাংলাদেশ সরকারের পক্ষে সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসার কাজী আসাদুজ্জামান গত ১২/০৭/১৬ ইং তারিখে আঃ আজীজের নামে ৩০ ধারার একটি আপত্তি কেসের নুটিশ জারি করেন এবং ১৮/০৭/১৬ ইং তারিখ সকাল ১০টায় তার কার্যালয়ে সপক্ষের সমস্ত কাগজ পত্র নিয়ে হাজির হতে বলেন। ধার্যদিনে আঃ আজীজের সমস্ত কাগজ পত্র শুনানিন্তে পর্যালোচনা পূর্বক আপত্তি কেসটি খারিজ করে দেন। এবং আজীজের জমির কাগজ সঠিক আছে বলে মন্তব্য করেন। আপত্তি কেসটির খবর ছড়িয়ে পড়লে এমপি নুরুল হকের দখলবাজী নিয়ে এলাকায় আর এক দফা ব্যাপক আলোচনা সমালোচনার দেখা দেয়।

এলাকাবাসী প্রশ্ন তুলে বলেন জমির মালিক যদি আঃ আজীজ ও বাংলাদেশ সরকার হয় তাহলে এমপি নুরুল হক কোন কাগজ বলে আজীজের রেকর্ডীয় জমিও খাস জমি দখল করলো।এমপি নুরুল হক ক্ষমতার বলে ধরাকে সরাঙ্গান করে মিথ্যা জমির মালিক সাজিয়ে নামমাত্র মুল্যে মাত্র ৫ লাক্ষ টাকার বিনিময়ে ৫০ শতক জমি পাওয়ার অব এ্যাটার্নি নিয়ে জমি দখল করেছে এমনি অভিযোগ অনেকের।

আপত্তি কেসটি খারিজ

আপত্তি কেসটি খারিজ

আজীজের পুত্র আসাদুল ইসলাম বলেন ইবাংলাকে বলেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা আমাদের আওয়ামী পরিবারটিকে দখলবাজ এমপি নুরুল হকের কবল থেকে রক্ষা করবেন এবং আইনশৃঙ্খলা রক্ষ্যকারী বাহিনী এবং সমাজের বিবেকবান নাগরিকরা আমাদের নির্যাতিত পরিবারের পাশে থাকবেন।এভাবে রক্ষক যদি ভক্ষক হয় তাহলে সাধারন জনগনের কি হবে? এভাবে দখলবাজী করে কি এমপি নুরুল হক কি পার পেয়ে যাবে নাকি আঃ আজীজ বদ্ধ বাড়িতে পরিবার নিয়ে ধুকে ধুকে মরবে? বাচ্চাদের কি স্কুলে যাওয়া এভাবে বন্দ থাকবে? আজীজের দীর্ঘদিনের যাতয়াতের পথকি বন্দ থাকবে নাকি বন্দ পথটি উন্মুক্ত হবে?
স্টাফ রিপোর্টার/ই-বাংলা পত্রিকা/৪ঠা আগস্ট, ২০১৬ ইং